শবে বরাত: লাইলাতুন নিছফি মিন শাবান

শাবানের চৌদ্দ তারিখের দিবাগত রাত, অর্থাৎ শবে বরাত সামনে। আমরা এ রাতে সাধ্য অনুযায়ী নফল ইবাদত করব ইনশাআল্লাহ। যে কাজ শরীয়ত অনুমোদন করে না, তা মুমিন করে না। কিন্তু যেটা শরীয়ত অনুমোদন করে, তা মুমিন ততটুকুই পালন করে থাকে যতটুকু শরীয়ত অনুমোদন করে।

নফল ইবাদত একাকী করাটাই উত্তম। শবে বরাতে পুরো রাত জাগতে হবে – এমন জরুরী নয়, ইবাদতের জন্য জাগতে পারলে ভাল। কিন্তু অন্যান্য সময়ের মত এশা ও ফজর জামআতে পড়াটা বেশি জরুরী। কোন বিশেষ প্রকার নামায বর্ণিত নেই। দু’ রাকআত করে নফল নামায পড়ব। দুআ-ইস্তেগফার করব। হালুয়া-রুটি, পটকা-বাজির কথা কুরআন-সুন্নাহ সম্মত কোন আমলই নয়।

শবে বরাতের প্রমাণ হাদীসে নেই, তা পালন করা বিদ’আত – এ জাতীয় কথা বলা, বিশ্বাস করা আরেক ভ্রষ্টতা। বরং, এ রাতে আল্লাহ পাক তাঁর সৃষ্টির প্রতি বিশেষ দৃষ্টি দেন, বহু মানুষকে ক্ষমা করেন, মুশরিক ও হিংসুক বঞ্চিত থাকে — এ কথা গ্রহণযোগ্য হাদীস দ্বারা প্রমাণিত।

শবে বরাতে মসজিদ ও কবরস্থানে ভিড় করা আরেক মন্দ রেওয়াজ। এগুলো পরিহার করে একাকী আল্লাহ’র দরবারে নামায-দুআ-তওবা-ইস্তেগফারে মনোযোগী হব ইনশাআল্লাহ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *