শবে বরাত: করণীয় ও বর্জনীয় – ১

১৫ই শাবান অর্থাৎ শবে বরাত (শাবানর চৌদ্দ তারিখ দিবাগত রাত) খুব কাছে।

শবে বরাত বিষয়ে আমাদের সমাজে রয়েছে প্রান্তিক ধারণা ও বিশ্বাস। একদল একে সম্পূর্ণ বিদ’আত বলে অগ্রাহ্য করে। আরেক দল একে শবে কদর তুল্য মনে করে এ রাতে অত্যধিক বাড়াবাড়ির সাথে ইবাদত করে। অথচ সঠিক মত সেটাই যা আমাদের নেককার পূর্বসূরিগণ নিজেরা আমল করেছেন, অন্যদের তাগিদ করেছেন। সাহাবা রা., তাবেঈন, তাবে-তাবেঈন ও পরবর্তী উলামায়ে-হক ও বুযূর্গগণ এ রাতে ব্যক্তিগত ইবাদতকে বিশেষভাবে গুরুত্ব দিয়েছেন। এ সম্পর্কিত সহীহ হাদীস আছে: মুআয ইবনে জাবাল রা. বলেন, নবী করীম ﷺ ইরশাদ করেছেন (অর্থ), আল্লাহ তাআলা অর্ধ-শাবানের রাতে (শাবানর চৌদ্দ তারিখ দিবাগত রাতে) সৃষ্টির দিকে (রহমতের) দৃষ্টি দেন এবং মুশরিক ও বিদ্বেষ পোষণকারী ব্যতীত আর সবাইকে ক্ষমা করে দেন। (সহীহ ইবনে হিব্বান: ১৩/৪৮১, ৫৬৬৫, শুআবুল ঈমান: ৩/৩৮২, ৩৮৩৩)

শবে বরাত বা ‘মুক্তির রাত’ নামে খ্যাত অর্ধ-শাবানের রাতটি ফযীলতপূর্ণ নয়ই অথবা এ রাত উপলক্ষে ইবাদত করা বিদ’আত – এ কথা মুহাক্কিক উলামায়েকেরাম নাকচ করে বলেছেন, এ রাতে ব্যক্তিগত ইবাদত হাদীস দ্বারা প্রমাণিত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *