রমযান: তওবা করে জীবন নবায়নের মাস

ইস্তেগফার ও তওবার উপকারিতা বলে শেষ করা যায় না। আল্লাহ তাআলা নিজে “তাউওয়াব” – অধিক ক্ষমাশীল বা বারংবার তাওবা কবুলকারী। বান্দা হিসেবে আমাদের হওয়া উচিত “আউওয়াব”* – অধিক তওবাকারী। একজন বান্দা যদি “আউওয়াব” হতে পারে, তাঁর অবস্থা এমন হবে যে, গুনাহ-র চাহিদা সৃষ্টি হলে তাঁর তওবাই তাঁকে স্মরণ করিয়ে দিবে, “তুমি না ঐ ব্যক্তি, যে গুনাহ্ থেকে তওবা করেছ…!”

এজন্যইতো যত বারই গুনাহ হোক, তত বারই তওবা করা চাই। তওবাকারী কখনোই গুনাহ-র উপর হঠকারি নয়। সে তওবাকারী, অর্থাৎ, আল্লাহ তাআলার দিকে প্রত্যাবর্তনকারী। তাঁর মর্যাদা আল্লাহ তাআলালার কাছে বেশি হয়ে যায়, তাঁর প্রতি আল্লাহ তাআলার অনুগ্রহ বর্ষিত হয়। এজন্যই সে পরবর্তীতে পাপ করতে ইতস্তত বোধ করে, তাঁর মাঝে খোদাভীতি তথা তাকওয়া পয়দা হতে থাকে। এক সময়ে সে পাপ পঙ্কিলতার জীবন ত্যাগ করার তৌফিক পেয়ে যায়। আল্লাহ তাআলার মাহবুব বান্দায় পরিণত হয়….ইতিহাস আমাদেরকে ফুযায়েল ইবনে আয়ায্, হাবীব আযমী, বিশরে হাফী-র মতন হাজার-লাখো আল্লাহ ওয়ালাদের জীবনী শোনায়, যাঁদের পূর্ব জীবন অন্যরকম ছিল। তওবা তাঁদেরকে বিশ্ব ইতিহাসে গৌরবোজ্জ্বল স্থান দিয়েছে। আমরা পরবর্তীগণ – তাঁদের নাম সম্মানের সাথে নিই, নামের পর বলি – রাহমাতুল্লাহি আলাইহি!

শায়খ যাকারিয়া সাহারানপুরি রহ: (সেই সৌভাগ্যবান ব্যক্তিবর্গের একজন, যাঁর কবর মদীনার জান্নাতুল বাক্বী-তে) বলেছেন, আমাদের দ্বীন – ইসলামের মাঝে দুটি জিনিস খুব বিস্ময়কর! একটি: নিয়্যত, অপরটি তওবা। আসলেই শায়খের কথাটি খুবই তাৎপর্যপূর্ণ। শুধু নিয়্যতের বিশুদ্ধতা কোথা থেকে মানুষকে কোথায় পৌঁছে দেয়, আবার তওবা দ্বারা জাহান্নামের দিকে ধাবিত মানুষ মুহুর্ত কালের মধ্যে কিভাবে জান্নাতের দিকে ধাবমান হয়, আল্লাহওয়ালা বনে যায়। এটা আল্লাহ তাআলার অশেষ-অগণিত কৃপা ও মহিমা!

পবিত্র রমযান তওবা করার বিস্ময়কর সুযোগ দেয়! আল্লাহর পথে অগ্রসর হওয়ার পথ উন্মোচন করে, সহজ করে। প্রতিদিন ইফতারির সময়ে অসংখ্য জাহান্নামী-কয়েদী মুক্তি লাভ করে। যে নফস্ আর শয়তান সারা বছর আমাদের গুনাহর দিকে ধাবিত করতে প্রয়াস পায় – তারাও বন্দী! পানাহার, স্ত্রী-গমন বন্ধ হওয়াতে নফস্-ও অনেকটা কাবু হয়ে যায়।

অতএব, রমযান সূবর্ণ সুযোগ – তওবা করে জীবনে ইতিবাচক পরিবর্তন নিয়ে আসার।


“আউওয়াব” শব্দটি সূরা ক্বাফ-এর ৩২ নম্বর আয়াতে রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *