রমযানুল মুবারক: আসল বছর ঘুরে একবার

পবিত্র রমযান মাস। কুরআন নাযিলের মাস। ইসলামের অন্যতম ইবাদত রোযা পালনের মাস। তাকওয়া অর্জনের মাস। আল্লাহ তাআলার পক্ষ থেকে বিশেষভাবে ঘোষিত রহমত, বরকত, মাগফিরাত ও নাজাতের মাস। বছর ঘুরে একবার আসে। তারপর দ্রুত অতিক্রান্ত হয়। আল্লাহর বান্দাদের জন্য দুনিয়ার হায়াতে এত দীর্ঘ সময়ের এরকম সুবর্ণ সুযোগ সাধারণভাবে পাওয়াই যায় না। 
হায়! বুঝে আসেনি নেয়ামত: আল্লাহ তাআলা আমাদেরকে তাঁর নেয়ামতের কদর বোঝার তৌফিক দিন। তা না হলে দেখুন, কত মানুষের চোখ আছে, হাত-পা-কান, নাক-মুখ — সবই আছে! মস্তিষ্ক সচল ও সতেজ আছে – মন ভরে চিন্তা করতে পারছে, শরীর সুস্থ আছে। দিন রাঁত ছুটাছুটি করছে। পর্যাপ্ত রিজিকেরও অভাব নেই। কিন্তু এমন শত শত হাজার হাজার মানুষের জীবন কোথায় কোথায়  লেগে আছে, কিভাবে হেলায় নষ্ট হচ্ছে! আখেরাতের অশেষ জীবনের বিষয়ে সম্পূর্ণ গাফেল। আল্লাহ তাআলার সামনে হিসাব দিতে হবে – এই চিন্তার লেশমাত্র নেই। থাকলেও একদম গৌণ। এক একটা নেয়ামতের কি না অবমূল্যায়ন! কতই না ক্ষতিকর সব বিষয়াদিতে দিনরাত লিপ্ত! এরকম অবস্থা থেকে আল্লাহ তাআলার পানাহ্ চাই আমরা।  
মানবজীবনটা অমূল্য। কিন্তু যখনই এই জীবনটির ব্যবহার যথেচ্ছ হবে তখনই তার মূল্য নষ্ট হতে থাকবে। তওবা না করে জীবনকে ক্রমাগত যথেচ্ছ ব্যবহারের ফলে অমূল্য জীবন কোন এক সময়ে সম্পূর্ণ মূল্যহীন হয়ে পড়বে। তখন আর আফসোস করে কোন লাভ হবে না। জীবনের মূল্য উদ্ধার তো বহু দূরের কথা, জীবনটাই শেষ হয়ে যাবে! মৃত্যুর পর গাফেলেরা হায় আফসোস করতেই থাকবে; তাদের সেই আফসোস শোনার কেউ থাকবে না।
তওবা ও জীবন পরিবর্তনের এখনি সময়: রমযানুল মুবারক প্রতিটি মুসলমানকে এই কথাটি বিশেষভাবে সতর্ক করার ও স্মরণ করানোর মাস। যথেচ্ছ ব্যবহার তো দূরের কথা – মুসলমান যেন তাকওয়ার সুধা পান করে আল্লাহর পথে আরও অধিক অগ্রসর হতে পারে, আল্লাহ তাআলা সেই ব্যবস্থাপনায় রমযানকে করেছেন ভরপুর! এটা আল্লাহ তাআলার অশেষ নেয়ামত যে, নেক অনুপাতে তো মানুষ রমযানে ইতিবাচক সাড়া দিয়েই থাকে, ব্যাপক রহমতের কারণে অনেক অসতর্ক মানুষও সতর্ক হয়ে যায়।
আমরা প্রত্যেকে সাধ্যমত রমযানুল মুবারকের কদর করি, তাহলে জীবনের কদর করা হবে, ঈমান ও ইসলামের কদর করা হবে। আল্লাহ তাআলার সন্তুষ্টি অর্জনের জন্য এত মোক্ষম সুযোগ হয়ত জীবনে আর কোনদিন মিলবে না! আল্লাহর ওয়াস্তে নিজের উপর রহম করি – জীবনের মোড়কে গুনাহর থেকে ঘুরিয়ে নেকের দিকে নিয়ে যাই। যে যে অবস্থায়ই আছি, তওবা করি, আল্লাহর রহমত অপার! তিনি এখন দান করছেন…তাঁর রহমত ও মাগফিরাত থেকে এখন গাফেল হওয়াটা বড় মাহরুমির বিষয়!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *