বিদায় রমযান ১৪৩৯ হিজরী

আপনার খুব ঘনিষ্ঠ একজন বন্ধু আছে। সে বছরে একবার আপনার বাসায় বেড়াতে আসে। খালি হাতে কখনোই সে আসে না, আপনার জন্য অনেক কিছু নিয়ে আসে। আর না জানায় হঠাৎ করেও চলে আসে না। আপনাকে জানায় আসে। আপনে খুব ভাল করে জানেন যে অমুক সময়ে সে আপনার বাসায় আপনার সাথে অন্তরঙ্গ সাক্ষাতে আসবে, আপনার সাথে থাকবে।

যেহেতু বন্ধুটি আপনার বাসায় আগে থেকে জানায় আসে, তাকে স্বাদরে গ্রহণ করার পর্যাপ্ত সময়-সুযোগও আপনার হাতে থাকে। বন্ধুর কাছ থেকে যে অনুপাতে আপনে উপকার নিতে চান, নিতে পারবেন। কিন্তু শর্ত হল, তাকে সময় দিতে হবে। তাকে সময় না দিলে আর তাকে এড়িয়ে চললে অবশ্য আপনি তার উপকার থেকে বঞ্চিত হয়ে যাবেন। তার আনা জিনিসগুলোও আপনে পাবেন না।

এ বছরও আপনার কাছে বন্ধুটি একইভাবে আসলো, আপনার বাড়িতে থাকল। এইতো প্রায় মাস হয়ে যাচ্ছে সে আপনার বাড়িতে আছে…এখন অবশ্য সে বিদায় নেবে।

আপনার স্বার্থেই সে এসেছিল। তার নিজের কোনো স্বার্থ ছিল না!

আপনে তাকে সময় দিয়েছিলেন তো? আপনার জন্য তো সে অনেক কিছু এনেছে, সেগুলো নিয়েছেন তো??!

বন্ধুটি এখনো কিছু সময় আছে কিন্তু!…এখনো চলে যায়নি। তবে সে চলে যাবে, তার যাওয়ার সময়টি ঘনায় আসচে। তার ‘রিটার্ন টিকেট’ কাটা, আপনার বাসা থেকে ঠিক সময়ে তাকে বের হয়ে যেতে হবে। আপনাকে সে আগেই তার বিদায়ের দিন-ক্ষণ সব বলে দিয়েছিল।

আবার সামনের বছর সে বন্ধু আপনার বাড়িতে আসবে ইনশাআল্লাহ। কিন্তু আপনি বাড়িতে থাকবেন তো?! …মানে দুনিয়ার হায়াত কখন কার ফুরিয়ে যায় – আল্লাহ তাআলা ছাড়া কে জানেন!? আমরা অবশ্যই আপনার দীর্ঘ নেক হায়াত চাই ও সেজন্যে দুআও করি। কিন্তু বন্ধুটি যে এখন বিদায় নেয়ার সময় হয়েছে! তার থেকে শেষ সময়ে কিছু উপকার তো নেন…

…রমযানুল মুবারকই আমার-আপনার সেই বন্ধু। এখন তার বিদায়ের পালা। আমরা কি তার উপযুক্ত আপ্যায়ন করতে পেরেছি?  না, আসলেই পারিনি।

(বেশির ভাগ সময়) নেয়ামত হাত-ছাড়া হলেই সেটার মূল্য আমাদের উপলব্ধ হয়। এখন অন্তত আল্লাহ তাআলা’র কাছে বিশেষভাবে ক্ষমা চেয়ে নেই। হে আল্লাহ! তুমি আমাদের ক্ষুদ্র প্রচেষ্টাগুলোকে কবুল কর, যত ভুল-ত্রুটি ও গুনাহ হয়েছে – সব ক্ষমা কর! আমীন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *