প্রতি তারাবীহর আগেই জানুন কুরআনের ঐ অংশের মর্ম…

কুরআন মাজীদ। আল্লাহ পাকের কালাম। শাহী ফরমান। সর্বশ্রেষ্ঠ নবী মুহাম্মাদুর রাসূলু্ল্লাহﷺ-এর উপর সর্বশ্রেষ্ঠ ও সর্বশেষ ওহী। নাযিল হয়েছে পবিত্র রমযান মাসে। বার মাসের মধ্যে রমযান এই সৌভাগ্য পেয়েছে! উম্মত হিসেবে কি আমাদের কম সৌভাগ্য! আমরা কুরআন পেয়েছি! এই উম্মত কুরআন পেয়ে ধন্য হয়েছে। আলহামদুল্লিাহ!

কিন্তু দুর্ভাগ্য হল, আজ সেই কুরআন আমাদের জীবনে নেই…আমরা গাফলতের মধ্যে আছি।নিজেদের উপর করেছি সর্বোচ্চ পর্যায়ের যুলুম।

আর অবহেলা নয়। আর কেবল মুখে মুখে আস্ফালন-আফসোস নয়। চলুন খাঁটি তওবা করি। তওবার পথে আমাদের ক্ষুদ্র প্রচেষ্টা – প্রতিদিন মসজিদে যে তারাবীহ হবে তার মর্ম আগেই বোঝার চেষ্টা করা। …যেন কুরআন আমাদের জীবনে হেদায়াত পৌঁছায়, যেন কুরআনের মর্ম উপলব্ধি করে আমরা আল্লাহ ও তাঁর রাসূল ﷺ-এর আনুগত্যে জীবন গড়তে পারি।

আল্লাহর শোকর। আমাদের কাছে এক আল্লাহ-ওয়ালার পারা-ভিত্তিক কুরআনের সহজ-সরল মর্মকথা’র বাংলা তরজমা তৈরি! মূল বইটি উর্দুতে ‘খোলাসাতুল কুরআন’, বাংলায় তরজমা – কুরআনের মর্মকথা। লেখক মাওলানা আসলাম শায়খপুরী রহমাতুল্লাহি আলাইহি (আল্লাহ উনার মোকামকে অনেক উঁচু ও বুলন্দ করুন! আমীন)। আমাদের ঘনিষ্ট বন্ধুবর, নওজোয়ান আলেমে দ্বীন, মাওলানা রাশেদুর রহমান হযরতের বইটি তরজমা করেছেন। আল্লাহ তা’আলা উনাকে দ্বীনের খেদমতের জন্য আরো অনেক বেশি কবুল করুন! হায়াতে, সীহাতে, এলমে আরো উন্নতি দান করুন। আমীন।

প্রিয় পাঠক!

আপনাদের কাছে বিনীত আবেদন এই যে, রমযানে এই উপহারটি গনীমত মনে করুন। নিজে পড়ুন। অন্যকে পড়তে উৎসাহী করুন। আমাদের উদ্দেশ্য কেবল এই যে, মানুষ কুরআনকে জীবনে আঁকড়ে ধরুক! তিলাওয়াত করা ও শোনার সাথে সাথে, মুমিন কুরআনের মর্ম বুঝুক। কুরআনকে জীবন পথে চলার রাহবার (পথপ্রদর্শক) হিসেবে মনে, প্রাণে, চিন্তায়, কাজে আলিঙ্গন করুক! আল্লাহর সামনে আমাদের বলার কী থাকবে যদি আজ – এই তথ্য-প্রযুক্তির যুগে, ব্যাপক ছাপাখানার যুগে এবং এত অনুকূল অবস্থায়ও আমরা কুরআনের মর্ম বোঝা ও উপলব্ধি করা থেকে দূরে থাকি?!

ইনশাআল্লাহ প্রতিদিন তারাবীহর আগেই আমাদের সাইটে ঐ দিনের তারাবীহ’র তিলাওয়াতের অংশটি pdf তোলা হবে। আপনি পড়তে পারবেন!

আল্লাহ তা’আলা আমাদের সবাইকে পড়ার, বোঝার ও আমলের তৌফিক দিন! আমীন।

খোলাসাতুল কুরআন: ভূমিকা (পুরো পড়তে ক্লিক করুন)