মুসলমানের পারিবারিক জীবন – ‌১

একজন মুমিন তার পরিবারের মাঝে কেমন থাকবে?

এ কথার বাস্তব জবাব ও চিত্র আমরা আমাদের প্রিয় নবীজি ﷺ-এর জীবনে যথাযথভাবে পাই। আমাদের প্রতিটি কাজ প্রিয় নবীজি ﷺ-এর সাথে মিলিয়েই করতে হবে। তখনই আমি আশা করতে পারব যে আমি তাঁর উম্মত। এক উম্মত তো হল প্রিয় নবীজি ﷺ-এর উম্মত হিসেবে জন্ম নেয়া। এই নেয়ামত পেয়ে আমরা খুশি ও কৃতজ্ঞ। কিন্তু দায়-দায়িত্ব মুক্ত কি? না, তা কিন্তু নয়। বরং এখন এ উম্মতের মর্যাদা অক্ষুণ্ণ রাখতে হবে। দায়িত্ব আরও বেশি।

পরিবারের মাঝে কেউ মাতা, কেউ পিতা, কেউ বোন, কেউ বা ভাই। কেউ স্বামী, কেউ স্ত্রী – এভাবে আরও অনেক রকম সম্পর্ক রয়েছে। একই ব্যক্তি এক সময় পিতা এক সময় পুত্র। আবার কখনো তিনিই একটি পরিবারের কর্তা। পরিবারের বাইরে – অফিস-আদালতেও তার রয়েছে ভিন্ন কোন ভূমিকা। এক এক অবস্থান ও অবস্থায় তার দায়-দায়িত্ব ভিন্ন। এ কথা আমরা সবাই জানি ও মানি।

পরিবারের মাঝে একজন মুমিনের অথবা মুমিনার অবস্থান বড় একটি ভূমিকা রাখে। বর্তমান সময়ে আর্থিক দিকটিই আমাদের নজরে পড়ে বেশি। যে কর্মক্ষম কেবল তার দায়িত্ব, গুরুত্ব বা তার প্রতি সম্মান ও শ্রদ্ধাবোধ  বেশি জাগ্রত হয়। এটা একটি মাত্রা পর্যন্ত ঠিক আছে, কিন্তু এই মাপকাঠিতেই সব বিচার-বিবেচনা যেমন ঠিক নয়, অন্যদেরও সম্মান ও শ্রদ্ধা পাওয়ার যথেষ্ট কারণ রয়েছে। যেমন: একজন গৃহিণী। তিনি কোন আর্থিক সহায়তা দিয়ে পরিবারকে সাহায্য প্রদান করতে পারে না। কিন্তু তার দায়-দায়িত্ব কম নয়। তিনি যে কাজগুলো করেন তা গৃহকর্তা করতে পারেন না। এটি একটি উদাহরণ। বাড়ির বড় থেকে বড়, ছোট থেকে ছোট – সবার একটি স্বতন্ত্র অবস্থান রয়েছে। ইসলাম সেটার মূল্যায়ন করে থাকে।

আজ এতটুকুই। ইনশাআল্লাহ এ আলোচনা চলবে। আল্লাহ তাআলা তাওফীক দিন। আমীন।

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *