কোন ব্যক্তি সর্বোত্তম

প্রতিটি মানুষই নিজেকে সর্বোত্তম ভাবতে ভালবাসে। কিন্তু প্রকৃত সমাধান দিয়েছেন প্রিয় নবী রাসূলে কারীম ﷺ। নবীজি ﷺ ইরশাদ করেন (অর্থ): তোমাদের মধ্যে সেই সর্বোত্তম যে নিজ স্ত্রীর কাছে সর্বোত্তম। আর তোমাদের মধ্যে নিজ স্ত্রীর কাছে আমি সর্বোত্তম। তিরমিযী: ৩৮৯২

উল্লেখিত হাদীসটি আমাদেরকে এই শিক্ষাই দেয় যে, স্ত্রীর সাথে সুন্দর আচরণ এবং সদ্ব্যবহারের মাধ্যমেই উত্তম ও শ্রেষ্ঠ হওয়া যায়। জীবনের এই দিকটি যার যত উন্নত, মানুষ হিসেবে সে তত উন্নত। সূরা রুমের ২১ নম্বর আয়াত আল্লাহ তা’আলা বলছেন (অর্থ): আর তিনি তোমাদের মাঝে সম্প্রীতি ও করুণা সৃষ্টি করে দিয়েছেন – যাঁর বার্তাও এই যে, শ্রেষ্ঠত্বের আসনে সমাসীন হতে হলে স্ত্রী-পরিজনের সাথে সদ্ব্যবহার ও আচরণকে সুন্দর করতে হবে।

ইসলাম পূর্ব যুগে সমাজে নারীর কী অবস্থা ছিল তা সংক্ষেপে বোঝার জন্য হযরত উমর রা. এর এ বাক্যটিই যথেষ্ট: আল্লাহর কসম, জাহেলী যুগে আমরা মহিলাদেরকে কোন গুরুত্বই দিতাম না। অবশেষে (ইসলামের আবির্ভাবের পর) আল্লাহ তা’আলা তাদের ব্যাপারে বিধান নাযিল করেন এবং (সমাজে) তাদের অধিকার প্রদান করেন। বুখারী: ৪৯১৩; মুসলিম: ১৪৭৯।

ইসলাম ধর্ম অনুযায়ী নারীর প্রতি একজন পুরুষের আচার ব্যবহার কেমন হওয়া উচিত তার সঠিক এবং বাস্তব চিত্র আমরা দেখতে পাই রাসূলুল্লাহ ﷺ এর জীবন চরিতে। তিনি ﷺ আচার-আচরণ এবং আখলাকে সবকিছুর মাধ্যমে প্রমাণ করে গিয়েছেন যে, নারীর প্রতি সদাচারকারীই হল সর্বোত্তম ব্যক্তি। তাই তো ইরশাদ হয়েছে: তোমাদের মধ্যে সেই সর্বোত্তম যে নিজ স্ত্রীর কাছে সর্বোত্তম। আর তোমাদের মধ্যে নিজ স্ত্রীর কাছে আমি সর্বোত্তম।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *