কী জন্যে, কী উদ্দেশ্যে

মুমিন প্রতিটি কাজ কেবল আল্লাহর জন্য, তাঁর সন্তুষ্টি অর্জনের উদ্দেশ্যে করবে।

একমাত্র ঐ আমলই কবুল হওয়ার আশা করা যায় যা আল্লাহ তা’আলাকে সন্তুষ্ট করার জন্য করা হয়েছে। মন চাবে মানুষ আমাকে এই বলুক – ঐ বলুক, মানুষ আমার প্রশংসা করুক। মনের এই চাহিদার বিরোধিতা করতে হবে। মানুষ কী বলবে তা দিয়ে কী লাভ?! একে লাভ মনে করাটাই এক লোকসান। কারণ মানুষের প্রশংসা আর নিন্দার কারণে কাজ করলে মানুষ-পূজারী হতে হয়। এর-ওর মন রক্ষায় জীবন পাড় করতে হয়। অথচ বাস্তবতা হল, না সবাইকে এক সাথে সন্তুষ্ট করা যায়, আর না সবার মন জুগিয়ে চলা কোন সহজ কাজ! আমাদের কাজের চূড়ান্ত পুরস্কার বা শাস্তি মানুষের হাতে নয়।

সব কাজের মৌলিক উদ্দেশ্য আল্লাহ তা’আলার সন্তুষ্টি অর্জন – এঁর অধীনে মানুষকে সন্তুষ্ট করলে তাও মূলত আল্লাহ তা’আলার সন্তুষ্টিই উদ্দেশ্য। নিয়্যতের পরিশুদ্ধতা অনুপাতে নেক আমল কবুল হবে, নেক ফলাফল অর্জিত হবে। অতএব,  মুমিন সব বিষয়ে, সব কাজে আল্লাহ তা’আলার সন্তুষ্টিকে সামনে রাখে। নেক আমলের বিনিময় কেবল তাঁর সন্তুষ্টি সন্ধানের মাধ্যমেই সম্ভব – এ কথাটি তার মনে সদা-সর্বদা জাগ্রত থাকে। প্রতিটি নেক কাজের পর বিশেষভাবে ইস্তেগফার করার এ হল অন্যতম কারণ যে, আমার এই কাজে অন্য কোন নিয়্যত মিশে যায়নি তো?! নেক কাজ করার পর মুমিনের অন্তরের আর্জি যেন এমন: আল্লাহ্! আমার এই কাজে অন্য কোন উদ্দেশ্য মিশ্রিত হয়ে গেলে তুমি ক্ষমা কর! এই ক্ষুদ্র প্রচেষ্টাকে তুমি কেবলই তোমার রাজি-খুশির জন্য কবুল কর!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *